আজ মেয়র সাদিক আবদুল্লাহর জন্মদিন

0

আজ ১৯ নভেম্বর বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর জন্মদিন। এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম নেয়া সাদিক আবদুল্লাহর পিতা পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন সংক্রান্ত কমিটির আহবায়ক মন্ত্রী আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ এম.পি ও মাতা সাহান আরা বেগম শহীদ জননী, বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি ও সংস্কৃতিজন। তিন ভাইয়ের মধ্যে বড় সাদিক আবদুল্লাহ তার জীবদ্দশায় নানা ঘাত প্রতিঘাত মোকাবেলা করে আজ নিজেকে রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছেন।

মাত্র দেড় বছর বয়সে মৃত্যুর মুখোমুখি হতে হয়েছিলো তাকে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালোরাত্রিতে যখন নির্বিচারে হত্যা চালানো হয়েছিল তখন সাদিক ছিলেন তার মায়ের কোলে। সাদিক আবদুল্লাহ মহান আল্লাহতায়ালার প্রতি সবসময় শুকরিয়া আদায় করে বলে থাকেন হয়তো জনগনের সেবা করার জন্য সেদিন তাকে আল­াহ বাঁচিয়ে রেখেছিলেন। আগস্ট ট্রাজেডির পর পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সাথে সাদিক আবদুল্লাহকে পলাতক জীবনযাপন করতে হয়েছে। দেশের বিভিন্ন স্থানসহ ভারত গিয়ে আশ্রয় নিতে হয়েছে।

সেখান থেকে দেশে ফেরা, আবার আমেরিকায় গিয়ে প্রবাস জীবন যাপন এতো কিছুর মধ্যেও ধৈয্য হারাননি তিনি। রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান সাদিক অনেক উত্থান, পতন দেখেছেন আর অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে তিলে তিলে নিজেকে তৈরী করেছেন। তিনি সক্রিয় রাজনীতি শুরু করেছেন বছর দশেক হলো। এক যুগেরও কম সময় সরাসরি রাজনীতির সাথে জড়িত হলেও এই কম সময়েই তিনি নিজেকে আপাদমস্তক রাজনীতিবিদ হিসেবে গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছেন।

সকল প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে আজ তিনি বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের জন্য একজন অপরিহার্য্য নেতা হিসেবে আর্বিভূর্ত হয়েছেন। তিনি ঘোষনা করেছেন প্রয়োজনে তিনি সহায় সম্বল বেঁচে দেবেন তারপরেও সংগঠনের কোন নেতাকর্মীকে বিনা চিকিৎসায় অথবা না খেয়ে মরতে দেবেন না। অল্প সময়ের মধ্যে সংগঠনের নেতাকর্মীদের মন জয় করে তিনি যেমন দলে অনেকটা অপ্রতিদ্বন্দ্বি হয়ে উঠেছেন তেমনি গরীব মানুষসহ সকলের সাথে সহজভাবে মিশে তিনি হয়ে উঠেছেন গনমানুষের একজন।

২০১৮ সালে প্রথমবারের মতো বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে নির্বাচন করার সুযোগ পান তিনি। অনেকটা আসলেন, দেখলেন এবং জয় করলেন- এর মতো। তিনি বাজিমাত করে দিয়ে বিপুল ভোটে হলেন সিটি মেয়র। যদিও নিজেকে তিনি নগর পিতা নয় একজন সেবক হিসেবেই ভাবতে পছন্দ করেন।

মেয়র সাদিক আবদুল্লাহ আজ নগরীর সর্বোচ্চ মসনদে আসীন হলেও তিনি সবসময় থাকতে চান জনতার কাতারে। ওয়াক্তের নামাজ অথবা জানাজা নামাজ পড়তে গিয়ে তিনি কখনো সামনের কাতারে দাঁড়ান না। তার মতে প্রধানমন্ত্রী দেরীতে গিয়েও সামনের কাতারে বসাকে অপছন্দ করেন।

তাই তিনি এ থেকে বিরত থাকেন। মুক্তা পানি খাওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী যেদিন আহবান জানিয়েছেন সেইদিন থেকে তিনি ওই পানি ব্যবহার করছেন। সাদিক আবদুল্লাহ বয়স্কদের যেমন সন্মান করেন তেমনি ছোটদের স্নেহ করেন। মেয়রের মতে আগে নেতাকে নয় মা-বাবাকে সন্মান করো। মুরব্বীদের সন্মান করো। কারন সন্মানিত ব্যক্তি সন্মান না পেলে সমাজ ধ্বংস হয়ে যায়।

এইতো সেদিন বরিশালে এসে মেয়রর আদব কায়দা আর কর্মতৎপরতা দেখে শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুন্নুজান সুফিয়ান বরিশাল বাসীকে সাদিক আবদুল্লাহর সাথে থাকার আহবান জানিয়ে বলেছিলেন ওর শরীরে বঙ্গবন্ধুর রক্ত ও বেইমানী করবেনা।

সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহন করে সাদিক আবদুল্লাহ যেমন সেখানে শুদ্ধি অভিযান চালিয়েছেন আবার তার কর্মকর্তা- কর্মচারীদের জন্য হয়েছেন মানবিকও। তিনি পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের বেতন বাড়িয়েছেন। অনিয়মিত সকল কর্মচারীর জন্য চালু করেছেন বোনাস। মাসের প্রথম সপ্তাহেই পরিশোধ করা হচ্ছে বেতন। চাকুরী শেষে অবসর যাওয়ার পর যাবতীয় সকল সুবিধা পাওয়ার স্বপ্ন কেউ কখনো দেখেননি। কিন্তু সাদিক আবদুল্লাহ দাবি করার আগেই অবসরে যাওয়া ৪৬ জন স্টাফকে একসাথে তাদের সকল পাওনা পরিশোধ করে দিয়ে বিসিসির ইতিহাসে নজির সৃষ্টি করেছেন।

বয়সে নবীন এই মেয়র সকলকে সাথে নিয়ে স্বপ্ন দেখেন আগামীর বরিশাল গড়ার। তাদের ভালো রাখা যায় তা একাকি ভাবতে তিনি স্ত্রী সন্তানদের বাইরে পাঠিয়ে দিয়েছেন। মেয়র বরিশালের জনগনকে ভাবেন তার পরিবারের সদস্য। এদের ভালবাসা ত্যাগ করা যায়না বলেই তিনি সংসারের মায়া অনেকটাই ত্যাগ করেছেন। একারনে কোন ক্ষোভও হয়তো নেই প্রান প্রিয় সহধর্মিনী লিপি আবদুল্লাহর। আদরের তিন সন্তান পিতা সাদিক আবদুল্লাহর স্নেহ ভালবাসা থেকে অনেকটাই বঞ্চিত। তারপরেও তারা তাকে সার্পোট দিয়ে যাচ্ছে।

কারন তাদের বাবার বরিশালের জনগনের প্রতি ভালবাসার পরিমাপটা তারা বুঝতে পারছেন ধীরে ধীরে। তাই বাবাকে অনেক মিস করলেও তারাও মানিয়ে নেবার চেষ্ঠা করছেন। ধর্মভীরু সাদিক আবদুল্লাহ নামাজ পড়া নিয়ে যেমন মিথ্যাচার না করতে আহবান জানিয়েছেন তেমনি কর্মীরা সালাম দিলে তার উত্তর দেয়ার জন্য নিজ সংগঠনের নেতাদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

নগরীর সিনিয়র সিটিজেন ও বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন মানুষদের জন্য নগরভবনে একটি হেল্প ডেক্স চালু করেছেন প্রথমবারের মতো। পিতার মতোই তিনিও অলি আউলিয়া, পীর মাশায়েকদের ভক্তি শ্রদ্ধা করেন। সময় পেলই ছুটে যান তাঁদের কবর জিয়ারতের উদ্দেশ্যে। মেয়র ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়িকে মোটেও পছন্দ করেননা।

প্রধানমন্ত্রীর শ্লোগান ধর্ম যার যার উৎসব সবার সেটাকে মর্ম বানী হিসেবে মানেন সাদিক। তিনি ইমামদের জন্য ইমাম ভবন নির্মান করে দেয়ার ঘোষনা দিয়েছেন। আবার এবছর মহানগরীর পুজা মন্ডপগুলোতেও অনুদানের অর্থের পরিমান বাড়িয়ে দিয়েছেন। শিশু মনের মানুষ সাদিক আবদুল্লাহ শিশুদের ভীষন পছন্দ করেন। শিশু বান্ধব নগরী গড়ার তিনি কাজ করছেন।

উৎসবের সময় নতুন পোশাক নিয়ে ছুটে যান এতিমখানাসহ দু:স্থ শিশু নিবাস কেন্দ্র গুলোতে। শিশুদের জন্য একটি পার্ক সংস্কারের পাশাপাশি নগরীতে গড়ে তুলেছেন আরেকটি শিশু পার্ক। ঘোষনা দিয়েছেন নগরীর পাড়া মহল্লায় মিনি পার্ক নির্মানের। মিডিয়া বান্ধব সাদিক আবদুল্লাহ গনমাধ্যম কর্মীদের ব্যাপক মূল্যায়ন করে থাকেন।

তিনি মনে করেন রাজনীতিবিদ ও সাংবাদিকরা একে অন্যের পরিপূরক। কারন সাংবাদিকরা লিখনীর মাধ্যমে জনগনের ভালমন্দ তুলে ধরেন। আর রাজনীতিবিদরা জনকল্যানের জন্য রাজনীতি করেন। সংস্কৃতিপ্রেমী সাদিক আবদুল্লাহ তার মায়ের মতো সাংস্কৃতিক অঙ্গনে পৃষ্টপোষকতা করতে পছন্দ করেন। বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সাদিক প্রায়ই বলে থাকেন একজন বিবেকহীন শিক্ষিত লোকের চেয়ে একজন দেশপ্রেমিক অশিক্ষিত মুক্তিযোদ্ধা অনেক ভালো।

আর সেকারনেই তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি রক্ষার্থে ত্রিশ গোডাউন এলাকার বধ্যভূমি সংরক্ষনে কাজ শুরু করেছেন। মেয়র হওয়ার আগেই নগরী থেকে মদ, জুয়া, হাউজিসহ অপকর্ম উৎখাত করতে সক্ষম হওয়া সাদিক মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষনা করে বলেছেন কোন মাদক কারবারীকে ছাড় দেয়া হবেনা। আসলে শতভাগ রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান সাদিক আবদুল্লাহ একজন মানুষ হিসেবে মানুষের পাশে থাকতে চান।

সস্তা জনপ্রিয়তা না তিনি নগরীর টেকসই উন্নয়নের মতোই মানুষের কাছ থেকে টেকসই ভালবাসা আশা করছেন। তিনি তার উপর ভরসা রাখার কথা বলেন। তিনি দূর্যোগে নগরবাসীর জন্য হাটু সমান পানিতে নামতে পারেন আবার উৎসবে ঘরে ফেরা মানুষদের নির্বিঘ্নে যাতায়াতের জন্য ফ্রি বাস সার্ভিস চালু করে তাদের জন্য নির্ঘুম রাত কাটাতে পারেন। বহু গুনের এই সাদাসিধে মানুষটির জন্মদিনে তাকে অফুরন্ত শুভেচ্ছা জানাই। শুভ এই দিনে তার দীর্ঘায়ূ, সুস্বাস্থ্য ও সার্বিক মঙ্গল কামনা করছি।

Share.

Leave A Reply